এক নজরে স্কুল

বিদ্যালয়ের ভবনসমূহ:বিদ্যালয়ের প্রধান একাডেমিক ভবন মাঠের দক্ষিন পাশে অবস্থিত।  বিদ্যালয়ের অফিসসমূহ, পরীক্ষাগারগুলো এবং কিছু শ্রেণীকক্ষ এই ভবনে অবস্থিত।

মাঠ:তালুক শাখাতী উচ্চ বিদ্যালয়ের একটি অন্যতম অনুষঙ্গ এর কেন্দ্রীয় মাঠ। আয়তকার এই মাঠটির ক্ষেত্রফল প্রায়  এক একরবিদ্যালয়ের প্রাত্যহিক সমাবেশ, বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতাসহ বিভিন্ন বাৎসরিক অনুষ্ঠান এই মাঠে আয়োজন করা হয়। মাঠের পূর্ব ও পশ্চিম পাশে ফুটবল খেলার জন্য গোলপোস্ট, কেন্দ্রে একটি ক্রিকেট পীচ এবং দক্ষিণ-পশ্চিম প্রান্তে একটি ভলিবল কোর্ট ও নির্মান স্কুল ক্রিকেটের জন্য একটি প্র্যাকটিস ক্রিকেট পীচ রয়েছে।

কম্পিউটার ল্যাব:তালুক শাখাতী উচ্চ বিদ্যালয়ের একটি সুবিশাল ও সুসজ্জিত কম্পিউটার ল্যাব আছে। এখানে ইন্টারনেট সংযোগ সহ ০৭ টি কম্পিউটার চালু আছে। বাংলাদেশ

মাল্টি মিডিয়া ক্লাশরুম:তালুক শাখাতী উচ্চ বিদ্যালয়ের একটি সুবিশাল ও সুসজ্জিত কম্পিউটার ল্যাব আছে। এখানে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগ সহ প্রায় ০৭টি কম্পিউটার চালু আছে। এখানে মাল্টিমিডিয়া ক্লাস পরিচালনার প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়। এবং শিক্ষকগণ নিজস্ব ল্যাপটপের মাধ্যমে মাল্টিমিডিয়া প্রোজেক্টরে শ্রেণি পাঠদান পরিচালনা করেন।

ছাত্রদেরঅবশ্যইপালনীয়নিয়মাবলী

  1. পরম করুনাময় আল্লাহ তা’আলা সৃষ্টিকর্তাকে স্মরণ করে সকল কাজ আরম্ভ করবে। স্ব স্ব ধর্মের বিধান মেনে চলবে।
  2. মাতা-পিতা, শিক্ষক-শিক্ষিকা ও বড়দের শ্রদ্ধা করবে এবং সালাম দেবে।
  3. সৎ চিন্তা করবে, সৎ পথে চলবে, সত্য কথা বলবে, অন্যায়কে ঘৃণা এবং প্রতিহত করতে চেষ্টা করবে।
  4. অধ্যবসায়ী ও পরিশ্রমী হবে। জীবনে সফলতার জন্য আল্লাহ/সৃষ্টিকর্তার উপর ভরসা করবে ও তার সাহায্য চাইবে।
  5. স্কুল ইউনিফর্ম পরিধান করে নিয়মিত স্কুলে আসবে। স্কুল ইউনিফর্ম ছাড়া কোন অবস্থাতেই শ্রেণি এবং পরীক্ষার কক্ষে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না।
  6. জাতীয় সংগীত, শপথ বাক্য ও মুসলমান ছাত্ররা সূরা ফাতিহা (বাংলা অর্থসহ) শুদ্ধ উচ্চারণে মুখস্ত করবে।
  7. বিদ্যালয়ে কোন ছাত্র খেলার যে কোন সরঞ্জাম নিয়ে আসবে না।
  8. ক্লাস বসার ১৫ মিনিট পূর্বে স্কুলে আসবে, যথারীতি ‘সমাবেশে’ যোগদান করবে এবং সেখান থেকে সারিবদ্ধভাবে শ্রেণিকক্ষে প্রবেশ করবে।
  9. শ্রেণির ঘন্টা বাজার পর ৫ মিনিটের মধ্যে যদি কোন শিক্ষক/শিক্ষিকা শ্রেণি কক্ষে না আসেন, তাহলে ‘শ্রেণি মনিটর’ সহকারী প্রধান শিক্ষক/শিক্ষিকা অথবা প্রধান শিক্ষককে অবশ্যই জানাবে।
  10. স্কুল চলাকালীন সময়ে টিফিন পিরিয়ড ব্যতীত কোন ছাত্র শ্রেণিকক্ষের বাইরে কোথাও অনুমতি ছাড়া যেতে পারবে না।
  11. শ্রেণি কক্ষের ময়লা-আবর্জনা, টিফিনের বর্জ্য ইত্যাদি যত্রতত্র জায়গায় না ফেলে ক্লাসে সংরক্ষিত ঝুড়িতে ফেলবে। মনে রেখো পরিচ্ছন্নতা ঈমানের অঙ্গ ও ভদ্রতা রুচির পরিচায়ক।
  12. টিফিন পিরিয়ডে দিবা শাখার মুসলিম ছাত্ররা জোহরের নামাজ আদায় করবে।
  13. টিফিনের পর ওয়ার্নিং বাজার সাথে সাথে শ্রেণিকক্ষে প্রবেশ করবে।
  14. স্কুলের সম্পদ কেউ নষ্ট করলে উচ্চহারে জরিমানা আদায় করা হবে।
  15. খেলাধুলা এবং বিদ্যালয়ের যেকোন অনুষ্ঠানের শান্তি-শৃঙ্খলা-একতা বজায় রেখে অনুষ্ঠানকে সুন্দর ও সফল করতে আন্তরিকভাবে চেষ্টা করবে।
  16. কোন ছাত্র স্কুল পালালে তাকে কঠোর শাস্তি ভোগ করতে হবে।
  17. নিয়মিত পড়া শিখে স্কুলে আসবে এবং বাড়ির কাজ করে আনবে।
  18. শ্রেণিতে পাঠদান করার সময় মনোযোগ দিয়ে শুনবে এবং বুঝতে চেষ্টা করবে। কোন পাঠ ভাল ভাবে বুঝতে না পারলে আবার বুঝিয়ে দিতে শিক্ষককে অনুরোধ করবে।
  19. প্রতি পিরিয়ডে শিক্ষকগণ যে পাঠদান করবেন তা সংক্ষেপে “দৈনিক পাঠের বিবরণী” বইতে লিপিবদ্ধ করবে। বইটি বুঝতে না পারলে শিক্ষকদের সাহায্য প্রার্থনা করবে। বইটির যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করবে। বইটি হারালে ৬০/= টাকার বিনিময়ে আবার সংগ্রহ করতে হবে।
  20. পরীক্ষার হলে নকল করা, কথা-বার্তা বলা, বই-পত্র বা লেখা কোন কাগজ সঙ্গে আনা নিষেধ। এসব করলে তাকে বহিস্কার করা হবে।
  21. ছুটির ঘন্টা বাজার পর শ্রেণিকক্ষের লাইট, ফ্যান বন্ধ করে সকল ছাত্র সারিবদ্ধভাবে নিঃশব্দে শ্রেণিকক্ষ ত্যাগ করবে।
  22. স্কুলের দেয়ালে, দরজায়, জানালায় বা ডেস্কে কোন কিছু লিখলে কঠোর শাস্তি পেতে হবে।
  23. ছাত্রদের একক বা কোন যৌথ আবেদন লিখিতভাবে শ্রেণি শিক্ষক/শিক্ষিকার মাধ্যমে প্রধান শিক্ষকের কাছে জমা দিতে হবে।
  24. তিন মাসের বেতন একত্রে অন্যান্য পাওনাসহ জানুয়ারী-মার্চ, এপ্রিল-জুন, জুলাই-সেপ্টেম্বর ও অক্টোবর-ডিসেম্বর মাসের নির্ধারিত দিনে আদায় করা হবে।
  25. কোন ছাত্র একই ক্লাসে দু’বার ফেল করলে সরকারি আইন অনুযায়ী সে অত্র বিদ্যালয়ে পড়ার আর কোন সুযোগ পাবে না।
  26. কোন ছাত্রের আচার-আচরণে ত্রুটি পরিলক্ষিত হলে, বিদ্যালয়ের বিধি-বিধান ও শৃঙ্খলা মেনে না চললে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত বলে বিবেচিত হবে। প্রয়োজনে বিদ্যালয় থেকে টি.সি. প্রদান করা হবে।
  27. জরুরী প্রয়োজনে বিদ্যালয়ের শ্রেণি শিক্ষকের নিকট থেকে টেলিফোন/মোবাইল যোগাযোগ/তথ্য জানা যাবে।
  28. অর্ধবার্ষিক পরীক্ষার পর অভিভাবক দিবসে উত্তরপত্র অভিভাবককে নিয়ে শ্রেণিকক্ষে দেখতে হবে এবং শিক্ষকের সাথে কথা বলা যাবে। রেকর্ড যথাযথ সংরক্ষণের নিমিত্তে উত্তরপত্র বাড়িতে দেয়া হবে না।

 সম্মানিতঅভিভাবক/অভিভাবিকাদেরপ্রতিপরামর্শঃ

  1. শ্রেণিকক্ষে “দৈনিকপাঠেরবিবরণী” ব্যবহারবাধ্যতামূলক।
  2. প্রকৃতঅভিভাবক/অভিভাবিকা “দৈনিকপাঠেরবিবরণী” বইয়েনিজেরপরিচিতওনমুনাস্বাক্ষরদেবেন।
  3. প্রতিদিনআপনারছেলে/পোষ্যবিদ্যালয়থেকেবাসারফেরারপরসেদিনশ্রেণিতেশিক্ষককোনপিরিয়ডেকিবিষয়েপড়িয়েছেনতাদেখেছেলেরউপস্থিতিওপাঠ্যসমূহসম্বন্ধেনিশ্চিতহউনএবংঐদিনেরকার্যক্রমবিবরণিপৃষ্ঠারনিচেআপনারজন্যসংরক্ষিতস্থানেমন্তব্যসহস্বাক্ষরকরুন।
  4. আপনারছেলে/পোষ্যঠিকসময়েস্কুলড্রেসপরেস্কুলেআসেকিনাএবংছুটিরপরেবাসায়ঠিকসময়েফেরেকিনাএবংকতক্ষণনিয়মিতলেখাপড়াকরেতালক্ষ্যরাখুন।
  5. সাময়িকপরীক্ষাগুলোতেআপনারছেলে/পোষ্যনিয়মিতউপস্থিতথাকছেকিনাসেদিকেখেয়ালরাখুনএবংফলাফলজানতেচেষ্টাওস্বাক্ষরকরুন।মোটকার্যদিনের৯৫% উপস্থিতনাথাকলেযৌক্তিককারণদর্শানোছাড়াকোণছাত্রকেপরীক্ষাদেওয়ারঅনুমতিদেয়াযাবেনা।
  6. সাময়িকপরীক্ষারপ্রত্যেকমার্কক্যাটাগরি (রচনামূলক, নৈর্ব্যক্তিক, CA ইত্যাদি) বার্ষিকপরীক্ষারনম্বরেরসমন্বয়েচূড়ান্তফলাফলনির্ধারিতহবে।
  7. ৬ষ্ঠথেকে৯মশ্রেণিপর্যন্ত৮০% লিখিতপরীক্ষাএবং২০% ধারাবাহিকমূল্যায়ন।পরীক্ষারউভয়অংশেপৃথকভাবেপাসকরতেহবে।
  8. প্রথমথেকে১০মশ্রেণিপর্যন্ত১০০নম্বরেরসাময়িকপরীক্ষাকে৯০নম্বরেরুপান্তর (Convert) করাহবেএবংশ্রেণিপরীক্ষা১০নম্বর।
  9. দৈনিকপাঠেরবিবরণীবইএর “ছাত্রদেরআচরণ-বিধি” অভিভাবকঅবশ্যইপাঠকরবেনএবংসেঅনুসারেতাকেচলতেনির্দেশওসাহায্যকরবেন।
  10. ছাত্রদেরলেখাপড়াওচারিত্রিকঅবস্থাসম্পর্কেজানারজন্যপ্রকৃতঅভিভাবকঅবশ্যইমাঝেমাঝেসহঃপ্রধানশিক্ষকেরসাথেযোগাযোগকরবেন।
  11. ছাত্রসম্পর্কেযেকোনবিষয়েআলোচনারজন্যপত্রপাওয়ারপরনির্ধারিতদিনেওসময়েঅভিভাবকশ্রেণিশিক্ষক, সহকারীপ্রধানশিক্ষকেরসাথেযোগাযোগকরতেহবে।
  12. আপনারছেলে/পোষ্যস্কুলেঅনুপস্থিতথাকলেঅনুপস্থিতিরতারিখওকারণউল্লেখকরেআপনাকেইদরখাস্তকরতেহবে।মনেরাখবেনপরপরতিনদিনবিনাঅনুমতিতেঅনুপস্থিতথাকলেদরখাস্তসহনিজেউপস্থিতহতেহবে।
  13. কোনছাত্রঅসুস্থতারকারণেস্কুলেআসতেনাপারলেঅতি-সত্বরঅভিভাবকনিজেএকটিআবেদনপত্রচিকিৎসকসার্টিফিকেটসহপ্রধানশিক্ষকেরকাছেজমাদিবেন।
  14. কোনছাত্রপরীক্ষায়ফেলকরলেঅন্যশ্রেণিতেতার ‘প্রমোশনের’ ব্যাপারেকোনপ্রকারতদবিরকরাচলবেনা।
  15. যেসবঅভিভাবকনিজেস্কুলেআনা-নেওয়াকরেন, তারাতাদেরছেলেঠিকসময়েস্কুলেরগেটেপৌছেদেবেনএবংছুটিরপরেঠিকসময়েনিয়েযাবেন, বিদ্যালয়আঙিনায়অবস্থানকরবেননা।এতেপরিবেশেরভারসাম্যওছাত্রেরমনোযোগনষ্টহয়।
  16. আপনারছেলে/পোষ্যেরপরিস্কার-পরিচ্ছন্নতাওস্বাস্থ্যেরদিকেসতর্কদৃষ্টিরাখুন, খারাপপরিবেশওঅসৎসঙ্গথেকেদূরেরাখারচেষ্টাকরুন।
  17. মনেরাখতেহবেঅভিভাবকওশিক্ষক/শিক্ষিকারসম্মিলিতপ্রয়াসেরফলেছাত্রেরপাঠোন্নতিওসুন্দরচরিত্রগঠনসম্ভব।
  18. শিক্ষকশিক্ষার্থীরমানস-পিতাএকথাস্মরণেরেখেস্বীয়সন্তানেরপাঠোন্নতিওচরিত্রগঠনেরব্যাপারেশিক্ষকদেরস্বতঃস্ফুর্তসহযোগিতাঅব্যাহতরাখবেন- এটাইএকান্তকাম্য।
  19. সরকারিবিধিমালাঅনুযায়ীস্কুলপরিচালিতহয়।এতেআপনারসহযোগিতাকাম্য।
  20. সাময়িকপরীক্ষারপরনির্ধারিতঅভিভাবকদিবসেশ্রেণিকক্ষেআপনারছেলেরউত্তরপত্রদেখতেপারবেনএবংপ্রয়োজনেশিক্ষক/শিক্ষিকাগণেরসাথেমতবিনিময়করতেপারবেন।শৃঙ্খলাওরেকর্ডযথাযথসংরক্ষণেরস্বার্থেউত্তরপত্রবাড়িতেদেওয়াহবেনা।কেননাঅভিজ্ঞতায়দেখাগেছেউত্তরপত্রসংরক্ষণকরতেশ্রেণিকার্যক্রমব্যাঘাতঘটে।